কিসের বিনিময়ে নবনির্বাচিত মেয়রকে ফাঁদে ফেলছেন মাসুদ?

0

বরিশালের নবনির্বাচি

    ত মেয়রকে বিতর্কিত করতে “বিট মাসুদ “পেল কতটাকা?


    বরিশালের নবনির্বাচিত মেয়রকে বিতর্কিত করতে “বিট মাসুদ “পেল কতটাকা?

    বিশেষ প্রতিবেদক[][]

    বিসিসি নির্বাচন ২০১৮ এর নবনির্বাচিত বেসরকারিভাবে মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহকে ইতি মধ্যে পানির দামে বিক্রি করে দিয়েছে এক শ্রেনীর তথাকথিত সমর্থক গোষ্ঠী। পানির দামের চাইতেও সস্তায় বিক্রি করে তারা এ ”সেল্ফি “। আবার ভয়ঙ্কর বিষয় হল এর গোপন প্রতিবাদ করলেও তার উপর নেমে আসে মানহানিকর অপবাদ, করেন তারা প্রকাশ্যে গালিগালাজ!!!!

    কখনোও সময়ের সাহসী সাংবাদিক সাকিব বিপ্লব , কখনোও সিনিয়র সাংবাদিক নেতা নোমানী মানুম আবার কখনও প্রতিবেদককে কুরুচিপূর্ণ গালিগালাজ করে এরা। এর মধ্যে মাসুদ @মাসুদ সিকদার@বিট মাসুদ অন্যতম।

    বিট মাসুদের এমন অতি উৎসাহী কাজে কোন চক্রের গোপন ইন্দন তা পরিস্কার না হলেও অনেকটা কাছাকাছি। মাসুদের রাজনৈক কোন পদ-পদবী না থাকলেও সর্বত্র চষে খান তিনি। অভিযোগ রয়েছে মাদকব্যাবসা ও নারী পাচারকারী সদস্যও তিনি। এত কিছুর পরও নবনির্বাচিত মেয়রের ছবি ফেইজবুকে ঝুলিয়ে তা রীতিমতো বিক্রি করে চলেছেন বিট মাসুদ।

    মাতালের ন্যায় ফেইজবুকে সকল সাংবাদিককে গালিগালাজ করে নতুন সমালোচিত হয়েছেন নিজে,সমালোচিত করেছেন নবনির্বাচিত মেয়রকে। এ ধরনের কুরুচিপূর্ণ মানুষের সাথে ছবি তোলাটাও কতটা রুচির পরিচয় সন্দেহ করেছেন নগরবাসী।

    সাধারন মানুষ বলছেন “শেষ পর্যন্ত দুধের বাচ্চাও ছবি বেচে খাচ্ছে মেয়রের। ”

    এদিকে সরজমিনে দেখা গেছে চাঁদমারি কলোনি র হক সাহেবের বাসায় ভাড়া থেকেও বহুদিন ধরে বাসা ভাড়া দিচ্ছেননা মাসুদ।

    মাসুদ সেরনিয়াবাত ভবনের তেমন কোন ঘনিষ্ঠজন না হয়েও বরিশাল সিটিকর্পোরেশন এ চাকুরীর নামে হাতিয়ে নিয়েছে লাখ লাখ টাকা।

    উল্লেখ্য,বরিশালে কথিক যুবলীগ কর্মী বিট মাসুদ শিকদার, কুখ্যাত এরশাদ শিকদারের মত তার চাল চলন। বরিশাল নগরীর স্টেডিয়াম বস্তিতে বসবাস। বাসার মালিক আব্দুল হক জানালেন ৬ মাসের ভাড়া দেয়না বিট মাসুদ। ভাড়া চাইলে প্রান নাশের হুমকি দেয়। নিজেকে নব নির্বাচিত মেয়র সাদিক আব্দুল্লাহর লোক দাবী করে ভাড়া বাসায় বসে ইয়াবা বিক্রি করে। এ ছাড়া নগরীর বিভিন্ন রুটে চলাচলকারি অটো রিকশা থেকে বিটের নামে চাঁদা আদায় করছে। কলসকাঠির এক ইউপি চেয়ারম্যানের লক্ষ লক্ষ টাকা লুট করেছে ইট ভাটা নির্মানের নামে। কলসকাঠি থেকে বিতাড়িত হওয়ার পরে বরিশালের স্টেডিয়াম বস্তিতে ঠাই হয় বিট মাসুদের। চাদমারিতে একটি লাইটের দোকানের আড়ালে ইয়াবা ও মাদকদ্রব্য বিক্রি করতো। তার আত্মিয় লিখনের কাছ থেকে এসব মাদক দ্রব্য ক্রয় করে নগরির বিভিন্ন স্থানে খুচরা বিক্রি করতো বিট মাসুদ। সম্প্রতি বিট মাসুদের মুখোশ উম্মোচিত হওয়ায় এখন টালমাটাল অবস্থা বিট মাসুদের। নব নির্বাচিত মেয়র সাদিক আব্দুল্লাহ ইতিমধ্য জেনে গেছে বিট মাসুদের সব অপকর্মের সংবাদ।

    সাধারন অটো চালকরা বিট মাসুদের চাদাঁবাজিতে অতিষ্ঠ। পুলিশের নাম ও নব নির্বাচিম বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের মেয়রের নাম ভাঙ্গিয়ে বিট মাসুদ হলুদ অটো থেকে চাঁদা আদায় করে আসছে।বিট মাসুদের অপকর্ম বন্ধে অটোচালকরা নব নির্বাচিত মেয়র সাদিক আব্দুল্লাহ ও পুলিস কমিশনারের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

    আবার, তাং ১৭/০৯/২০১৮ইং তারিখ সাংবাদিক ও ব্লগার নিয়াজ মো.সমন্ধে নিজের ফেইজবুকে অশালীন তথ্য,মিথ্যা কিছু স্ট্যাটাস দেয় মাসুদ সিকদার।

    হুবহু লেখাটি তুলে ধরা হল” কথিত সাংবাদিক নামধারি চোর বাটপার নিয়াজের অজানা তথ্যঃনিয়াজ কে নিয়ে অনুসন্ধানে বেড়িয়ে এলো সব ভয়ংকার তথ্য সে নিজে কে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে শহর জুড়ে নানা অপকর্ম করে যাচ্ছে। শুরুতে ছিলো হোটেল বয় সেখান থেকে আবাসিক হোটেলে মাদক ও পতিতা সাপ্লাইয়ের কাজ শুরু করে পাশাপাশি জঙ্গী সংগঠন শিবিরের সক্রিয় সদস্য ছিল। এই অপকর্ম করতে গিয়ে অনেকবার মাদক ও নারী সহ একাধিক বার আটক হওয়া খবর পাওয়া গেছে। দীর্ঘবছর এ কাজে সম্পৃত্ত থাকার পরে শুরু করে গরুর দালালি। গরুর দালালি করতে গিয়ে গরু চোর চক্রের সাথে জড়িয়ে পড়ে। তার প্রমান লাকুটিয়া থেকে গরু চুরি করতে গিয়ে জনতার গনধোলাইয়ের শিকার হয়ে প্রায় এক মাস হাসপাতালে ভর্তি থাকতে হয়েছিল।এখানেই ক্ষান্ত থাকেনি নগরীর গীর্জা মহল্লায় একটি দোকানে মোবাইল কিনতে যায়। সুযোগ বুজে ঐ দোকান থেকে দুটি মোবাইল চুরি করে পালাতে গেলে দোকানদার দেখে ফেলে হাতেনাতে ধরে ফেলে ধোলাই দিয়ে বাম হাত ভেঙ্গে ফেলে পুলিশে তুলে দেয় তখন ও জামাতের এক নেতার সহযোগীতায় রক্ষা পায়। এরপর শুরু হয় ভুয়া সাংবাদিকতার নামে নগর জুড়ে চাঁদাবাজি। বিভিন্ন জায়গায় নিরিহ লোকদের ব্লাকমেইল করে চাঁদাবাজি করতে গিয়ে গনধোলাইয়ের শিকার হয়েছে বহুবার। তারপরে ও থেমে নেই কারন মার খাওয়া তার অভ্যাসে পরিনত হয়েছে।খোজ খবর নিয়ে জানা গেছে চোট্রামী ও লুচ্চামিতে সে এগিয়ে আছে সমানে সমান। এগুলি করতে গিয়ে বার বার বিয়ে করা এবং ছাড়া তার রুটিন ওয়ার্কে পরিনত হয়েছে।

Share.

About Author

Leave A Reply