সেই বিট মাসুদের নামে “মানহানি” মামলা!

0

কলঙ্কিত, মাতাল সেই মাসুদ ওরফে “বিট মাসুদ” এর নামে মানহানি মামলা!

বিশেষ প্রতিবেদক[][] ইয়াবা ব্যবসা করে কোটিপতি হওয়ার ধান্দা :কলসকাঠী থেকে গণধোলাই খেয়ে বিতারিত ও মাদকসেবী মাসুদের মত লোকজন বিসিসির নির্বাচন নবনির্বাচিত বেসরকারিভাবে মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহকে ইতি মধ্যে পানির দামে বিক্রি করে দিচ্ছে তথাকথিত সমর্থক গোষ্ঠী। পানির দামের চাইতেও সস্তায় বিক্রি করে তারা এ ”সেল্ফি “। ফেসবুকে বরিশালের সিনিয়র সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে লেখাই এখন মাসুদ @মাসুদ সিকদার@বিট মাসুদ অন্যতম কাজ।
বিট মাসুদের এমন অতি উৎসাহী কাজকে অনেকেই সন্দেহের চোখে দেখছেন। মাসুদের রাজনৈতিক কোন পদ-পদবী না থাকলেও সর্বত্র তিনি কখনো যুবলীগ আবার কখনো ছাত্রলীগ আবার কখনো নব নির্বাচিত মেয়র সাদিক আব্দুল্লাহর নামে অটো চালকদের থেকে বিটমানি আদায় ও ইয়াবা বিক্রি করছে। অভিযোগ রয়েছে মাদকব্যাবসা ও নারী পাচারকারী সদস্যও তিনি। এত কিছুর পরও নবনির্বাচিত মেয়রের ছবি ফেইজবুকে ঝুলিয়ে তা রীতিমতো বিক্রি করে চলেছেন বিট মাসুদ।
মাতালের ন্যায় ফেইজবুকে সকল সাংবাদিককে গালিগালাজ করে নতুন সমালোচিত হয়েছেন নিজে,সমালোচিত করেছেন নবনির্বাচিত মেয়রকে। এ ধরনের কুরুচিপূর্ণ মানুষের সাথে ছবি তোলাটাও কতটা রুচির পরিচয় সন্দেহ করেছেন নগরবাসী।
সাধারন মানুষ বলছেন “শেষ পর্যন্ত দুধের বাচ্চাও ছবি বেচে খাচ্ছে মেয়রের। ”
এদিকে সরজমিনে দেখা গেছে চাঁদমারি কলোনির হক সাহেবের বাসায় ভাড়া থেকেও বহুদিন ধরে বাসা ভাড়া দিচ্ছেননা বিট মাসুদ।বিট মাসুদ সেরনিয়াবাত ভবনের তেমন কোন ঘনিষ্ঠজন না হয়েও বরিশাল সিটিকর্পোরেশন এ চাকুরীর নামে হাতিয়ে নিয়েছে লাখ লাখ টাকা।
উল্লেখ্য,বরিশালে কথিক যুবলীগ কর্মী বিট মাসুদ শিকদারের চালচলন কুখ্যাত এরশাদ শিকদারের মত। বরিশাল নগরীর স্টেডিয়াম বস্তিতে বসবাস। বাসার মালিক আব্দুল হক জানালেন ৬ মাসের ভাড়া দেয়না বিট মাসুদ। ভাড়া চাইলে প্রান নাশের হুমকি দেয়। নিজেকে নব নির্বাচিত মেয়র সাদিক আব্দুল্লাহর লোক দাবী করে ভাড়া বাসায় বসে ইয়াবা বিক্রি করে। এ ছাড়া নগরীর বিভিন্ন রুটে চলাচলকারি অটো রিকশা থেকে বিটের নামে চাঁদা আদায় করছে। কলসকাঠির এক ইউপি চেয়ারম্যানের পুত্র মুন্নার লক্ষ লক্ষ টাকা লুট করেছে ইট ভাটা নির্মানের নামে। কলসকাঠি থেকে বিতাড়িত হওয়ার পরে বরিশালের স্টেডিয়াম বস্তিতে ঠাই হয় বিট মাসুদের। চাদমারিতে একটি লাইটের দোকানের আড়ালে ইয়াবা ও মাদকদ্রব্য বিক্রি করতো। তার আত্মিয় লিখনের কাছ থেকে এসব মাদক দ্রব্য ক্রয় করে নগরির বিভিন্ন স্থানে খুচরা বিক্রি করতো বিট মাসুদ। সম্প্রতি বিট মাসুদের মুখোশ উম্মোচিত হওয়ায় এখন টালমাটাল অবস্থা বিট মাসুদের। নব নির্বাচিত মেয়র সাদিক আব্দুল্লাহ ইতিমধ্য জেনে গেছে বিট মাসুদের সব অপকর্মের সংবাদ।
সাধারন অটো চালকরা বিট মাসুদের চাদাঁবাজিতে অতিষ্ঠ। পুলিশের নাম ও নব নির্বাচিত বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের মেয়রের নাম ভাঙ্গিয়ে বিট মাসুদ হলুদ অটো থেকে চাঁদা আদায় করে আসছে।
বিট মাসুদের অপকর্ম বন্ধে অটোচালকরা নব নির্বাচিত মেয়র সাদিক আব্দুল্লাহ ও পুলিশ কমিশনারের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
এদিকে গত ২৩/০৯/১৮ .তারিখ বিজ্ঞ মেট্রোপলিটন ম্যাজিষ্ট্রেট আমলী আদালতে একটি মানহানি মামলা করেন সাংবাদিক নিয়াজ মো.
মামলাসূত্রে জানা গেছে গত ১৬/০৯/১৮ তে মাসুদ সিকদার ছবিসহ একটি পোষ্টে সাংবাদিক নিয়াজ মো.কে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ ও মানহানিকর মিথ্যা সব লেখা লেখে। মামলা নং(২৩/২০১৮)
আদালতের নির্দেশে পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করছে বলে সর্বশেষ জানা গেছে।

Share.

About Author

Leave A Reply