কবরস্থান থেকে রাতে লাশ উঠিয়ে মাজার তৈরির পায়তারা

0

কবরস্থান থেকে রাতে লাশ উঠিয়ে মাজার তৈরির পায়তারা

শাহরিয়ার মোরশেদ :-

সিরাজগঞ্জের সলঙ্গায় হাটিকুমরুল ইউনিয়নের সি আর বি সি র্য়াব ক্যাম্পের পিছনে চরিয়া কালিবাড়িতে মোখসেদ পাগলের লাশ কবস্থান কমিটি ও স্থানীয়দের অভিহিত না করেই আনুমানিক রাত ২ টার দিকে বাড়িতে দাফন, মাজার বানানোর পায়তারা করছে পরিবারের লোকজন ও একটি ক্রু চক্রি মহল।

জানাযায়, সলঙ্গা থানার চরিয়া কালিবাড়ির মোকসেদ আলী পাগল প্রায় ৩ মাস আগে টিউমার ক্যান্সারে ৭০ বছর বয়সে মারা গেলে স্বাভাবিক ভাবেই চরিয়া র্যাব ক্যাম্পের পার্শে অবস্থিত কবরস্থানে দাফন করা হয়। গত ৩/৯/১৯ ইং তারিখে কবরস্থান কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছারাই গভির রাতে লাশ তুলে বাড়িতে দাফন করা হয়। মোকসেদ আলীর ছেলে তারাশ মাধাইনগর আধীবাসী কলেজের প্রভাশক নজরুল ইসলাম জানান, আমার বাবা মৃত্যর আগে বলে গিয়েছিলেন বাড়িতে কবর দেওয়ার জন্য কিন্তু সে সময়ে আমরা দিতে পারিনি এখন বাড়িতে এনে দাফন করেছি। মাজার তৈরির কথাও স্বীকার করে তিনি বলেন, জীবদ্দশায় পাগল ছিলেন, তার অনেক ভক্তও রয়েছে ভক্তরা চায় কবরকে ঘিরে মাজার হবে এবং বৎসরিক উরস মাহফিল হবে তাই আমরা বাড়িতে এনে কবর দিয়েছি।

কবরস্থান কমিটির সদস্য হাজী আব্দুল হাই খান সাহেব বলেন এটা সমাজ বিরোধী কাজ করেছে তারা লাশ তুলতে কমিটির অনুমতি নেওয়া হয়নি তারা কবস্থান থেকে রাতের আধারে লাশ চুরি করে নিয়ে যায়, এ নিয়ে এলাকায় বিভ্রান্ত সৃষ্টি হয়েছে আসলে কার লাশ নিয়ে গেছে এ নিয়ে আন্য সব লাশের সজনরাও চিন্তিত। আমরা প্রসাশনকে জানিয়েছি, দরকার হলে আমরা অভিযোগ করব। এছারাও এলাকাবাসী ও মসজিদে নামাজ রত মুসুল্লিরা জানান এই মোকসেদ ভন্ড ছিল তিনি শুক্রবারের নামাজও পরতেন না সে কি করে পীর হয়। কিছু কু চক্রীমহল ও তরিকাপন্থি লোকজন এই মোকসেদের লাশ নিয়ে গিয়ে ভন্ড পিরের মাজার তৈরি করে ব্যাবসা করতে চায়। আমাদের এলাকার সচেতন মহলের দাবি প্রসাশন ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দের কাছে এগুলো বন্ধ করতে হবে। এ ব্যাপারে সলঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি তাজুল হুদার জানান, আমরা এখনও লিখিত কোন অভিযোগ পাইনি পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে

Share.

About Author

Leave A Reply