বিষ মিশিয়ে পানিতে মাছ ধরায় কারাদণ্ড

0

বিষ মিশিয়ে পানিতে মাছ ধরায় কারাদণ্ড

রাজাপুরের মঠবাড়ি ইউনিয়নের মঠবাড়ি গ্রামের খালে বিষ দেওয়ার অভিযোগে সাবেক ইউপি সদস্যসহ ৫ জনকে এক মাস করে কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। সোমবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সোহাগ হাওলাদার তাদের এ সাজা দেন। তবে সাজাপ্রাপ্তদের অভিযোগ তাদের ফাঁসানো হয়েছে। দণ্ডিতরা হলেন- উপজেলার মঠবাড়ি ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের সাবেক সদস্য হেমায়েত উদ্দিন, মঠবাড়ি গ্রামের রশিদ হোসেনের ছেলে মঠবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পিয়ন সুমন হোসেন, বেলায়েত হোসেন, কালু সরদারের ছেলে রুবেল সরদার ও সিদ্দিক খলিফার ছেলে রাসেল খলিফা।

স্থানীয়রা জানায়, পুখরিজানা গ্রামের গোলাম মোস্তফা হাওলাদারের ছেলে সুমন হাওলাদার ও শাহজাহানের ছেলে কাইউমসহ একটি চক্র বিভিন্ন সময় খালে বিষ দিয়ে মাছ শিকার করে আসছে। সোমবার ভোরে বিষ প্রয়োগের পর তারা মাছ ধরে নিয়ে যায় এবং ভেসে ওঠা মরা মাছ ধরে নেওয়ার সময় জেলে রাসেল ও রুবেলকে সুমনসহ তার লোকজন মারধর করে আটকিয়ে রাখে এবং হেমায়েত, বেলায়েত ও সুমনের নাম বলতে তাদের চাপ দেয় ও মারধর করে। এ সময় তাদের কাছ থেকে মরা মাছ লুটে নেয়। মঠবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পিয়ন সুমন হোসেনের স্ত্রী শারমিন বেগমের অভিযোগ, সুমন হাওলাদার ও কাইউম সোমবার ভোরে পূর্বশত্রুতার জেরে খালে বিষ দেওয়ার অভিযোগ তুলে বেলায়েত হোসেন ও হেমায়েত মেম্বারের বাড়িতে গিয়ে তাদের গালমন্দ ও শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে এবং এ নিয়ে বিরোধ সৃষ্টি হয়। পরে তারাই খালে বিষ প্রয়োগের বিষয়টি ইউএনওকে জানায়। হেমায়েত, বেলায়েত ও সুমনের পরিবারের অভিযোগ, ঘটনার সত্যতা যাচাই না করেই প্রতিপক্ষের সাজানো দুই ব্যক্তির ভাষ্যমতে তদন্ত ও সাক্ষ্যপ্রমাণ ছাড়াই ইউএনও এ সাজা দেন।

খালে বিষ প্রয়োগের ঘটনায় ওই ৫ ব্যক্তি জড়িত দাবি করে ইউএনও সোহাগ হাওলাদার জানান, তাদের প্রত্যেককে এক মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে

Share.

About Author

Leave A Reply