কথিত ছাত্রলীগের নেতার বিরুদ্ধে সংবাদকর্মীর ফোন ছিনতাই ও পাঁচ লাখ টাকা দাবীর অভিযোগ।

0

কথিত ছাত্রলীগের নেতার বিরুদ্ধে সংবাদকর্মীর ফোন ছিনতাই ও পাঁচ লাখ টাকা দাবীর অভিযোগ।

নিজস্ব প্রতিবেদক:-বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের ২৫ নং ওয়ার্ডের কথিত ছাত্রলীগ নেতা মোঃ আজম খানের বিরুদ্ধে বরিশাল সংবাদকর্মীকে জিম্মি করে মারধর পূর্বক তাঁর কাছ থেকে নগদ টাকা মোবাইল ফোন সেট, সাংবাদিক পরিচয় পত্র (আইডি কার্ড) ছিনিয়ে নিয়ে জোরপূর্বক তালাকের অপচেষ্টা চালিয়ে ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করায় কোতয়ালী মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

স্হানীয় বাসিন্দা-প্রত্যাক্ষদর্শী স্বাক্ষী, পুলিশ ও অভিযোগের ভিত্তিতে জানাযায়, ঝালকাঠি জেলার সদর থানার, কাঁচাবালিয়া গ্রামের বাসিন্দা মাষ্টার মোঃ ইউসুফ আলীর ছেলে তানজিমুন ইসলাম রিশাদের সহিত বরিশাল মেট্রোপলিটন কোতয়ালী মডেল থানার রুপাতলী ২৫নং ওয়ার্ডের ভাড়াটিয়া বাসার বাসিন্দা মোঃ রফিকুল ইসলাম টুকুর মেয়ে মোসা: রাবেয়া আক্তার নাঈমার ইসলামী শরীয়ত মোতাবেক ৩ লাখ মোহরানা ধার্য মূলে ২৬ মে ২০১৭ বিবাহ হয়।

বিবাহের পর চাকরির সুবাদে রিশাদ কালিজিরা ব্রীজ সংলগ্ন বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস করছেন।
চলতি বছরের ৪ সেপ্টেম্বর রিশাদের স্ত্রী সন্তান সম্ভাবনা প্রসব বেদনা শুরু হলে, বরিশাল শেরে-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ওইদিন রাতেই রিশাদের স্ত্রী নাইয়ার সন্তান ভূমিষ্ঠ হয়।

অতঃপর ৫ সেপ্টেম্বর সকালে রিশাদের শাশুড়ি নাঈমাকে তাদের বাসায় নিয়ে যায়।

চলতি মাসের ২ তারিখ সোমবার রাত ৮টার দিকে রিশাদ স্ত্রী ও সন্তানের যাবতীয় মালামাল ক্রয় করে শশুরের বাসায় যাওয়ার সময়ে শশুরের বাসার সামনে ওৎপেতে থাকা কথিত ছাত্রলীগ নামধারী আজম খানের নেতৃত্বে ৮/১০ জন সশস্ত্র বাহিনীর ক্যাডাররা হামলা চালিয়ে রিশাদের খসঙ্গে থাকা নগদ ৫হাজার টাকা, হাতের ঘড়ি, সিম্ফনি মোবাইল ফোন সেট ছিনিয়ে নিয়েছে। রিয়াদের আত্মচিৎকার শুনে তার শাশুড়ি ও স্ত্রী এসে তাদের কাছ থেকে রক্ষা করে।

এ সময় রিশাদের সাথে থাকা বরিশাল সংবাদ টুয়েন্টিফোর ডটকম নিউজ পোর্টালের আইডি কার্ড ( সাংবাদিক পরিচয় পত্র) জোরপূর্বক ছিনিয়ে নেয়।এছাড়াও আজম বাহিনী হুমকি দিয়ে বলে, তোর বাবা-মাকে খবর দে”,৫ লাখ টাকা নিয়ে আসতে হবে। যদি টাকা নিয়ে না আসে।তোরে মেরে লাশ গুম করে ফেলা হবে।পরে তার শাশুড়ি ও স্ত্রীর অনুরোধে আজম রিশাদকে ঘাঁড় ধাক্কা বলে,আজ যা।তোর বাবা-মাকে সহ ৫ লাখ টাকা নিয়ে আসতে হবে।

এ ব্যাপারে গত ৭ অক্টোবর ২০১৯ সন্ধ্যায় কালিজিরা ব্রীজ সংলগ্ন নাসিরের লেপ-তোশকের দোকানের মধ্যে আপোষ-মিমাংসায় বসলেও আজম খান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন।সে নিজেকে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক পরিচয় দিয়ে বলে, তোর হাত-পা ভেঙে আলাদা করলেও আমাকে কেউ কিছু করতে পারবে না। এভাবে রিশাদ তার বাবাকে জিম্মি করে অসামাজিক ভাষায় কথা বার্তা বলতে থাকে। যার অডিও রেকর্ডিং সংবাদ কর্মীদের কাছে রয়েছে। আজম খান নিজেকে বরিশাল কোতয়ালী থানার ডন মনে করেন।আগামী শুক্রবারের মধ্যে ৫ লাখ টাকা চাঁদা না দিলে, মামলা করারও হুমকি দেয়।

রিশাদ তার স্ত্রী ও সন্তানকে সুষ্ঠু ফয়সালার মাধ্যমে ফেরত চেয়ে অভিযোগ দায়ের করেন। এছাড়াও আজম খান সহ তার দুই শ্যালক আজম খানের সহযোগী মাদক ব্যবসায়ী সানী-জনির বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যাবস্থা গ্রহণের জন্য বরিশাল কোতয়ালী মডেল থানার ওসি সহ পুলিশের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করেন।

অভিযুক্ত মোঃ আজম খান সাংবাদিকদের জানায়, আমি মেয়ে দূরসম্পর্কের মামা ও শালিসদার। কোতয়ালী থানায় দৈনিক ৪/৫ টি শালিস করি। আমার বিরুদ্ধে মামলা রুজু করার কারো সাহস নেই। চাঁদা চায়নি, ওর কাছে নাঈমাকে শুক্রবার দিয়ে দিবো।

নাঈমার ছোট্ট ভাই সানী সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, আমরাও মামলা করবো।ওর কাছে নাঈমাকে দিবো না। প্রয়োজনে ওকে কেটে টুকরো টুকরো করবো। আমি বিএম কলেজের শিক্ষার্থী। জসিম গ্রুপের ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত।

কোতয়ালী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ নুরুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, অভিযোগ পাওয়া গেছে।এসআই সাইদুল ইসলামকে তদন্ত পূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

Share.

About Author

Leave A Reply