বরিশালে শৌচাগারের সাথে শহীদমিনার !

0

বরিশালে শৌচাগারের সাথে শহীদমিনার !

নাগরিক ডেস্ক ★★ দক্ষিণ কর্ণকাঠি বৈকালিন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের আঙ্গিনায় স্থানীয় মসজিদের একটি শৌচাগারের পাশে শহীদমিনার তৈরিতে এলাকাবাসীর সচেতন মহলে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।
সরজমিনে শহীদমিনার স্থাপনের দিন গিয়ে দেখা যায় কিছু সংখ্যক রাজমিস্ত্রী স্থানীয় মসজিদের একটি শৌচাগারের ঠিক সাথেই শহীদমিনার স্থাপনের কাজ সম্পন্ন করছে। রং ও প্লাস্টারের কাজ করা অবস্থায় তাদের প্রশ্ন করলে তারা সাংবাদিকদের জানান , স্কুরের প্রধান শিক্ষক ও সংশ্লিষ্টদের অনুমতি নিয়েই তৈরি হয়েছে পবিত্র শহীদমিনারটি। তবে কি কারনে শৌচাগারের সাথে এটি তৈরি হল,তা আমরা জানিনা। এ সময় জেএসসি পরিক্ষা চলে বিধায় কাওকে পাওয়া যায়নি।

এরপর বৃহস্পতিবার পাঁচ ডিসেম্বর সকালের বার্তার সাংবাদিকদের স্থানীয় লোকজন অভিযোগ করেন, শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান স্কুলটি কোন কারনে ভিজিট করবেন জেনে স্কুল কতৃপক্ষ শৌচাগারের চারপাশে টিন মুড়িয়ে দিয়েছে। তবুও স্থায়ী কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়নি।
সরজমিনে সাংবাদিকরা গেলে ঘটনার সত্যতা মেলে। এবং উপস্থিত দাতা সদস্য (কমিটির) ও সাবেক সদস্য মো.জালাল খান ঘটনাটি অনাকাঙ্ক্ষিত ও ক্ষোভের সৃষ্টির কারন বলে স্বীকার করেন।
প্রধান শিক্ষক হুমায়ুন কবিরকে না পাওয়া গেলেও ফোনে জানান, ঘটনাটি অনাকাঙ্ক্ষিত। তবে এই শহীদ মিনারটি স্থাপনের প্রথম থেকে কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল সত্তার সাহেব উপস্থিত ছিরেন এবং উদ্বোধন করেছেন। এ বিষয়ে তিনিই ভাল বলতে পারবেন। ”

শৌচাগারের সাথে শহীদমিনার স্থাপন ও পবিত্রতা প্রসঙ্গে দক্ষিণ কর্ণকাঠী বৈকালিন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের স্কুল গভর্নিং কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল সত্তার মুঠোফোনে বলেন ” আমি ঢাকায় আছি। শৌচাগারটি মসজিদের। তারা ওখান থেকে অপসারণ করবেন বলেছিলেন। বাকি বিষয়টা নিয়ে আমি সামনাসামনি কথা বলবো। ”
তবে পবিত্র শহীদমিনার দেখেশুনে কি কারনে শৌচাগারের পাশে স্থাপন করলেন, সে বিষয়ে কোন উত্তর দিতে পারেননি স্কুল কতৃপক্ষ।
বিষয়টি অনাকাঙ্ক্ষিত ও লজ্জাজনক বলে বলেছেন স্থানীয় সাধারন মানুষ। এর নেতিবাচক প্রভাব শিশুদের উপর পড়বে বলে অভিভাবকরা শঙ্কিত।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন অভিভাবক ও সচেতন সাধারন মানুষ এবং ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের অনেকে।

Share.

About Author

Leave A Reply